zo-th-1
১০০০ টাকার পণ্য কিনলে সারা দেশে ডেলিভারি একদম ফ্রি।

খুশু খুযু

লেখকঃ আল্লামা ইবনুল কায়্যিম জাওযিয়্যাহ রহ

প্রকাশনীঃ সমকালীন প্রকাশন

বিষয়ঃ নামায ও দোয়া-দরুদ ,

#CODE: R53955184
average rating: 4.8
৳ 88 ৳ 125

খুশু-খুযু

আমাদের আল্লাহ তা’আলা বলেন,
“ঐ সকল মুমিনরা সফল যারা তাদের সালাতে বিনয়াবণত”(সূরা মুমিনুন, ১-২)
.
হুযাইফা (রাদ্বী) বলেন,
“তোমরা তোমাদের দ্বীনের বিষয়সমূহ থেকে সর্বপ্রথম খুশুকে(বিনয়) হারাবে, আর সর্বশেষ হারাবে সালাত। অনেক সালাত আদায়কারী আছে, তাদের মধ্যে কোনো কল্যাণ নেই। অচিরেই তোমরা মসজিদে প্রবেশ করবে, কিন্তু কোনো বিনয়াবণত সালাত আদায়কারী দেখতে পাবে না।”(মাদারিজুস সালাকিন, ১/৫২১)
.
খুশুই হলো, সালাতের প্রাণ এবং তার সবচেয়ে বড় উদ্দেশ্য। তাই খুশুহীন সালাত হলো, প্রাণহীন দেহের ন্যায়।
তাই সালাতে খুশু একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, যা খুব দ্রুত হারিয়ে যায় এবং যার অস্তিত্ব অত্যন্ত দুর্লভ। বিশেষ করে আমাদের এ শেষ যুগে তথা আখেরি যামানায়।
সালাতে খুশু তখন হাসিল হয়, যখন অন্তর সালাতের জন্য অবসর হয়। অন্য সব কিছু বাদ দিয়ে কেবল সালাত নিয়েই ব্যস্ত হয় এবং সব কিছুর পর কেবল সালাতকেই প্রাধান্য দেয়। তখন সালাত তার জন্য প্রশান্তি হয় এবং সালাত তার চোখের শীতলতা আনয়নকারী হয়। যেমন রাসূল বলেছেন, ‘আমার চোখের প্রশান্তি দেওয়া হয়েছে সালাতের মধ্যে’ ( মুসনাদ আহমাদ, ৩/১২৮)
.
তো এই খুশু কীভাবে অর্জিত হবে? জানতে পড়ুন ইবন কায়্যিম এর খুশু খুযু

Add a review

Please log in to write review

Login

Reviews and Ratings

Abu Talha - February 10,2021

👉বইয়ের নামঃ খুশূ খুযূ 👉লেখকঃ ইমাম ইবনুল কাইয়্যিম (রাহি.) 👉প্রকাশনীঃ সমকালীন প্রকাশন 👉পৃষ্ঠা সংখ্যাঃ ৮৬ 👉মূল্যঃ ১২৫ টাকা 👉বই পর্যালোচনাঃ বইটি মূলত নামাজ নিয়ে। যারা সালাতকে পরিশুদ্ধ করার মাধ্যমে আল্লাহর সাথে তাদের সম্পর্ক সুদৃঢ় করতে চায় এই বইটি তাদের অবশ্য পাঠ্য। বইটির মধ্যে খুব সুক্ষ্মভাবে নামাজের বিভিন্ন খুটিনাটি দেওয়া হয়েছে। আজকাল আমাদের নামাজের মধ্যে খুশূ-খুযূ খুবই কম। আর নামাজে কীভাবে খুশূ-খুযূ বাড়ানো যায় তার সুন্দর কয়েকটি পন্থা এই বইয়ে উল্লেখ রয়েছে। এই বইয়ে গান-বাজনা থেকে দূরে আসার পথ খুবই সাবলীল ভাবে বর্ণনা করা হয়েছে। বইটিতে মোট ৫ টি অধ্যায় রয়েছে। ১ম অধ্যায়ে নামাজ এবং অযু সম্পর্কে বিস্তারিত, সাথে নামাজের সূরা এবং তাকবীর সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। ২য় অধ্যায়ে খুশু-খুজু, সালাত সম্পর্কে ব্যাখ্যা করা হয়েছে। ৩য় অধ্যায়ে গান-বাজনা যে হারাম তা তুলে ধরা হয়েছে এবং সালাতের সাথে একটা পার্থক্য গড়ে তোলা হয়েছে। ৪র্থ অধ্যায়ে সাহাবীগনের রুচিবোধ,তাদের শ্রবণ ইত্যাদি সম্পর্কে আলোচনা রয়েছে। ৫ম অধ্যায়ে সালাতে ফিরে আসা,গান বাজনা থেকে দূরে যাওয়া এবং নিজের ইমান মজবুত করার সঠিক পন্থা বলে দেয়া আছে। 👉বইটি কেন পড়া উচিতঃ আপনি নামাজে অমনোযোগী, নামাজ পড়তে গেলে মনে শান্তি আসে না। তাহলে এই বইটি আপনার জন্য। নামাজে মনোযোগ বাড়ানোর সকল ফর্মুলা আপনি এই বইয়ে পাবেন। এই বইয়ে আপনি গান-বাজনা থেকে বের হয়ে আসার ও সুন্দর কিছু ব্যাখ্যা পেয়ে যাবেন। 👉পাঠ প্রতিক্রিয়াঃ বইটি পড়ে নামাজের বিভিন্ন নিয়ম কানুন শিখতে পেরেছি। তাছাড়া এই বইয়ে দেওয়া আছে সালাতের উপকারিতা সম্পর্কে বিস্তর আলোচনা। যা অসম্ভব ভালো লেগেছে। 👉পারসোনাল রেটিংঃ ৫/৫

Tamimul Ihsan - January 25,2021

সালাত। মানুষকে যতসব অশ্লীল ও মন্দ কাজ থেকে বিরত রাখে।যা মুমিনের জন্য গুনাহের ক্ষেত্রে ঢালস্বরুপ।কিন্তু আমাদের অনেকেরই সালাতে দাঁড়ালে উথালপাতাল হয়ে ওঠে মন।নানা চিন্তায় বিভিন্ন ভাবনায় আবদ্ধ হয় মনোযোগের সমস্ত আয়োজন।আমরা সালাতে দাঁড়ালেই ভীষণ ব্যস্ত হয়ে পড়ি।সালাতে বেশিক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকতে পারি না।সালাফদের জীবনকাহিনী হাজারটা পড়েও হতে পারি না তাদের মতো।হয়ে যায় তাদের মতো।তাই বৃক্ষের সন্জীবনী শক্তি এবং জমির উর্বরতার মতো প্রয়োজন পর্যাপ্ত প্রাণশক্তি।আর প্রাণশক্তি উজ্জীবন এবং উর্বরা করার নিবেদন নিয়েই রচিত বই "খুশু-খুযূ" মূলত বইটি ইমাম ইবনুল কায়্যিম (রাহি.)রচিত এক অনবদ্য গ্রন্থ "আসরারুস সলাহ" এর অনুবাদ।অনুবাদকের মতে,"লেখক তার মহামূল্যবান এই বইয়ে সালাতের সেই নিগূঢ় রহস্য, সুগভীর মর্ম, লক্ষ্য -উদ্দেশ্য সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন।বাস্তবেও তাই,লেখক তার মহামূল্যবান এই গ্রন্থে তুলে এনেছেন সেইসব মণিমুক্তা যা গ্রহণ করলে নিশ্চিতভাবে না হলেও খুশু-খুযূর সহিত সালাত আদায় করা সম্ভব হয়ে থাকবে। বইটিতে এছাড়াও আলোচনা করা হয়েছে, আমাদের সালাত কীভাবে প্রাণবন্ত করে আল্লাহর সামনে উপস্থাপন করা যায়...???সেই পদ্ধতিই বারবার বিভিন্নভাবে, হরেক রকমের বর্ণনার মাধ্যমে তুলে ধরা হয়েছে।তাই বইটি অন্যান্য উপন্যাসের মতো "ধরলাম,পড়লাম আর রেখে দিলাম"টাইপের বই না।বরং নিয়মিত চর্চা ও অনুশীলন যোগ্য একটা বই। আর লেখক সম্পর্কে বলতে গেলে,যিনি লিখেছেন ইমাম ইবনুল কায়্যিম (রাহি.) তিনি উম্মাহর একজন নক্ষত্র পুরুষ ছিলেন।ইমাম ইবনে তাইমিয়্যা(রাহি.) ছিলেন তার অনেক কাছের উস্তায।তাইমিয়্যা রাহি. ও তাকে পছন্দ করে থাকতেন।এছাড়াও অনেক বড় বড় শাইখ ওনার ইলমের প্রজ্ঞা সম্পর্কে আলোচনা করেছেন।হাফিজ ইবনু কাসির,হাফিয ইবনু রজব,ইমাম শাওকী ও ইমাম সুয়ূতীর (রাহি.)-র মতো প্রখ্যাত শাইখরা ওনার ইলম,তাসাউফ বা আত্মশুদ্ধি ও ইবাদাতের ব্যাপারে অনেক সুন্দর সুন্দর মন্তব্য করেছেন। ব্যক্তিগতভাবে যদি বলে থাকি,বলতেই হবে যে,বইটি সালাতে নিজেকে মনোযোগী করে তোলার ব্যাপারে ভীষণ কাজে দিয়েছে।ইমাম ইবনুল কায়্যিম(রাহি.)-র বইগুলো ইসলামী সাহিত্যের এক একটি সম্পদ। এই বইটিও সেরুপ পরিচয়ই বহন করে থাকে।দু-একটি ফিকহি মতপার্থক্য এই বইয়ের লেখাগুলোর সাথে আমার সাথে থাকতে পারে। কিন্তু সামগ্রিক দৃষ্টিতে বইটি অসাধারণ। দিনশেষে শুধু এতটুকুনই বলবো,তরুণ,বুড়ো সবার জরুরী এই বইটি পড়া।বিশেষ করে যারা খুশু-খুযূর সহিত সালাত আদায় করতে অক্ষম।বইটি পড়লে বুঝা যাবে, সালাত কি জিনিস আর কতটা অমূল্য সম্পদ। ব্যক্তিগত রেটিং:৪.৫/৫ মাআসসালাম.....

Montasir Mamun - January 24,2021

বই: খুশু খুযু লেখকঃ ইমাম ইবনুল কাইয়্যিম (রাহিমাহুল্লাহ) # প্রকাশনী: সমকালীন প্রকাশন মুদ্রিত মূল্যঃ ১২৫ টাকা পৃষ্ঠাসংখ্যাঃ ৮৬ বইটি কেন পড়বেন? নামাজ সম্পর্কে একটা ওভারঅল ধারনা পাওয়া যাবে বইটিতে। নামাজে কিভাবে আরো প্রশান্তি পাওয়া যায়, ধীর স্থিরভাবে পড়া যায় সেই টোটকা আছে বইতে। নামাজের মূল বিষয় ও কার্যক্রমগুলো তার হক আদায় করার মাধ্যমে এগুনোর ফলে পাঠকারীর নামাজ আরো ভাল থেকে ভাল হতে থাকবে ইনশা আল্লাহ। প্রানহীন নামাজগুলোতে প্রান ফিরে আসবে, নামাজীরা প্রশান্ত চিত্তে আল্লাহর সাথে মোলাকাত করতে পারবে ইনশা আল্লাহ। বইটিকে মোট ৫ টি অধ্যআয়ে ভাগ করা হয়েছে। 📖 ১ম অধ্যায়ে নামাজের প্রতিটি আনুষ্ঠানিকতাকে গভীরভাবে বিশ্লেষন করে তার মূলভাব, উপকারিতা বোঝানো হয়েছে যার ফলে নামাজের প্রতি ভালোবাসা সৃষ্টি হয়ে যায়। এটাই বইয়ের সবচাইতে আকর্ষনীয় ও ইফেকটিভ পার্ট বলেই মনে হয়। 📖 ২য় অধ্যায়ে নামাজে মনোযোগের উপায় বাতলে দেয়া হয়েছে। ৩ টি ধাপ অবলম্বনের কথা এখানে বর্নিত হয়েছে যা পালন করলে ইনশা আল্লাহ উপকার পাওয়া যাবে। মূলত ১ম ও ২য় অধ্যায়ই বইটির মূল অংশ। 📖 ৩য় অধ্যায়টা একটু ব্যতিক্রমী। অনেকে গান বাজনার মধ্যে আকর্ষন পায় কিন্তু নামাজের মধ্যে পায় না। এর কারন ও স্বরূপ উদঘাটনের চেষ্টা করেছেন লেখক। পরের দুই অধ্যায়ও এই বিষয়টিকে ঘিরেই লেখা। 📖 ৪র্থ অধ্যায়ে বলা হয়েছে ভাল মানুষ, সফল মানুষদের রুচিবোধের বিষয়ে। সাধারন অর্থহীন বা অসংলগ্ন অর্থের গান বাজনার চাইতে নামাজের শব্দ, কুরআন তিলাওয়াতের শব্দ তাদের কাছে গ্রহনীয় ছিল। এবং গান বাজনা পরিত্যাজ্য ছিল। 📖 ৫ম অধ্যায়ে গান বাজনার অকার্যকারিতা ও ক্ষতিকর দিক তুলে ধরে হৃদয় প্রশান্তিকারক হিসাবে নামাজকে প্রতিষ্ঠিত করা হয়েছে খুব দক্ষতার সাথে। ♥ রেটিং ৯/১০

আব্দুর রহমান - January 24,2021

ইসলামের একটি অন্যতম ইবাদত হলো নামায। ঈমানের পরই নামাযের স্থান। কিন্তু অন্যতম এই ইবাদত করতে গেলেই মনের মাঝে এমন সব কল্পনা মাথায় আসে যা নামায পরবর্তী অন্য সময় আসে না। কিন্তু এভাবে তো নামাযের পরিপূর্ণ হক আদায় হয় না। নামাযে পরিপূর্ণতা পেতে হলে একাগ্রচিত্তে ও আল্লাহর ভয়ে নামাজ আদায় করা উচিত। কেননা আল কুরআনে আল্লাহ তায়ালা বলেছেন- "অবশ্যই মু‘মিনরা সফল হয়েছে যারা নিজেদের সলাতে বিনয়ী” [ সূরা মু‘মিনূন,আয়াত : ০১-০২] তাইতো সালাতে একাগ্রতা নিয়ে এই সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে অন্যতম একটি বই হলো ইমাম ইবনুল কাইয়িম রচিত " আসরারুস সলাহ" । বইটি অনুবাদ করেছেন অভিজ্ঞ অনুবাদক মাসউদুর রহমান। বাংলায় নাম দেয়া হয়েছে "খুশু-খুজু"। , ➤ সার-সংক্ষেপঃ- ৮৪ পৃষ্ঠা ব্যাপী বিস্তৃত বইয়ের শুরুতে বইয়ের লেখক ইমাম ইবনুল কাইয়িম রহিমাহুল্লাহর জন্ম, পরিচয়, শিক্ষাজীবন সহ বেশকিছু তথ্য তুলে ধরা হয়েছে। এরপর লেখক বইটি চারটি অধ্যায়ে বিভক্ত করে আলোচনা করেছেন। যথা- *প্রথম অধ্যায়ঃ- এ অধ্যায়ে আলোচনা করা হয়েছে আল্লাহু আকবার বলা থেকে সালাম ফিরানো,প্রতিটা জিনিসই যে একেকটা ইবাদাত সে সম্পর্কে। আল্লাহু আকবার পড়া, সানা পড়া, আউযুবিল্লাহ পড়া, সুরা ফাতিহা পাঠ, রুকু, সিজদা, তাশাহহুদ পাঠ সহ নামাজের প্রত্যেকটি ইবাদত কে ব্যাখ্যা করা হয়েছে। সেই সাথে তুলে আনা হয়েছে এগুলোর অন্তর্নিহিত তাৎপর্য। *দ্বিতীয় অধ্যায়ঃ- এ অধ্যায়ে সালাতে মনোযোগের তিনটি ধাপ, সালাতের প্রতিটি কর্মে মনোযোগ বাড়ানোর উপায় ও খুশু-খুজুর উপকারিতা ইত্যাদি সম্পর্কে। *তৃতীয় অধ্যায়ঃ- সালাত ও গান বাজনার মধ্যে পার্থক্য। *চতুর্থ অধ্যায়:- এই অধ্যায়ে সাহাবিগণ ও পরবর্তীদের রুচিবোধ নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। *পঞ্চম অধ্যায়:- এ অধ্যায়ে গান-বাজনার সূক্ষ্ম বিষয় ও ক্ষতিকর দিকগুলো নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। পাশাপাশি অন্তরের প্রকারভেদ নিয়েও আলোচনা স্থান পেয়েছে। . ➤ বইটি কেন পড়বেনঃ- বইটি যদি আপনি পড়েন তাহলে কিভাবে নামাযকে আরো মাধুর্যমন্ডিত ও তৃপ্তিদায়ক করে তোলা যায় তা জানতে পারবেন। নামাজের উপকারীতা ও মজা এবং কোন কোন প্রতিবন্ধতার কারণে আপনি নামাজ আদায় করতে বা মনোযোগী হতে পারছেন না তা বুঝতে পারবেন, ইনশাআল্লাহ। . ➤ ব্যক্তিগত অনূভুতিঃ- "খুশু-খুজু" বইটি পড়ার পর এটি সবসময় সংগ্রহে রাখার মত একটি বই বলে মনে হয়েছে। নামাজে মনোযোগ ধরে রাখতে বইয়ের কথাগুলো বেশ সহায়ক। সবশেষে এত সুন্দর একটি বই পাঠকের হাতে পৌঁছে দেয়ার জন্য প্রকাশনী, লেখক, অনুবাদক সহ সকলের জন্য রইল অসংখ্য দুয়া ও শুভকামনা।